শেষ হলো এ বছরের লেনদেন

at-the-end-of-the-trading-year

বাংলা দর্পণ: চলতি বছরে দেশের পুঁজিবাজারের শেষ দিন ছিল আজ। এক বছরে বরাবরের মতোই উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে গেছে পুঁজিবাজার। তবে এ বছরে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে কিছুটা আস্থা ফিরে এসেছে। এই এক বছরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৪০৭ পয়েন্টের বেশি। বেড়েছে দৈনন্দিন লেনদেনের গতিও।

চলতি বছরে লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচক অবস্থান করছে ৫০৩৬ পয়েন্টে। ২০১৫ সালে লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচক অবস্থান করে ৪৬২৯ পয়েন্টে। এ বছরে সবচেয়ে বেশি লেনদেনের পরিমাণ ১ হাজার ৪৭৮ কোটি টাকা। গত ২৩ নভেম্বর ডিএসইতে এই পরিমাণ লেনদেন হয়।

বছরের শেষ পাঁচ ছয় মাস সূচকের অবস্থান ভালো ছিল। মূলত ব্যাংক সুদের হার এখন কম হওয়ায় বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারে আবার আগ্রহী হচ্ছেন বলে মনে করেন ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী।

আগামী বছর বাজারের অবস্থা উন্নয়নে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন বলেন, ডিএসই ভবন আগামী বছর সরানো হবে। এ ছাড়া ‘ক্লিয়ারিং করপোরেশন’, ‘অটিসি মার্কেট’ ও পুঁজিবাজারে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সংযোগ নিয়ে নতুন রূপরেখা তৈরি করা হচ্ছে। ‘এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড’ তৈরির আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে অফিস স্থানান্তর করবে ডিএসই। রাজধানীর খিলক্ষেত-নিকুঞ্জ এলাকায় ডিএসইর নিজস্ব জমিতে ১৩তলা ভবন তৈরি হচ্ছে।