চুপ থাকার উপকারিতা!

20633বাংলা দর্পন: চুপ থাকারও আছে উপকারিতা। তাও আবার বিজ্ঞানসম্মত। গবেষকদের একাংশের মতে, চুপ থাকলে কমে চিন্তা, বাড়ে কর্মক্ষমতা।কথা অবশ্যই ভাষা প্রকাশ করতে সাহায্য করে। তবে কিছু কথা নিজের মনের সঙ্গেও বলা ভালো। এতে নাকি মস্তিষ্ক ভীষণভাবে উপকৃত হয়। কী সেই উপকারিতা?

বছরের পর বছর গবেষণায় জানা গেছে, প্রতিদিন দুই মিনিটের নীরবতা গান শোনার থেকেও বেশি স্বস্তি দেয় মানুষের মস্তিষ্ককে। নিস্তব্ধতা মানব শরীরে জ্ঞানের বিকাশে সাহায্য করে। এর ফলে ভাষায় দক্ষতা বাড়ে। সমস্ত আবেগগুলিকে মগজে একত্রিত করে বিচার-বিশ্লেষণ করা যায়। এতে ঠিক-বেঠিকের সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়। শান্ত ব্যক্তিরা প্রতিকূল পরিস্থিতি বেশি ভালো সামাল দিতে পারেন। নীরবতা মগজের নতুন কোষগুলো বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে। নীরবতা তাই শুধু সম্মতির লক্ষণ নয়, তা মন ও শরীরের শান্তিরও কারণ। মন ও শরীরে শান্তি থাকলেই হয় মানুষের অগ্রগতি। প্রাচীনকালে মুনি-ঋষিরাও তাই হয়তো ধ্যানের কথা বলে গেছেন।